লগ ইন
 

Logo

Logo

মানব কল্যাণ পরিষদ-এমকেপি সম্পর্কে

ঠাকুরগাও, পঞ্চগড় ও দিনাজপুর জেলা বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ও নেপাল-ভুটান সংলগ্ন ভারত সীমান্ত বেষ্টিত হিমালয়ের সমতল ভূমিতে অবস্থিত। অঞ্চলটি অধিক শীত, অধিক গরম এবং অতি বৃষ্টি অনাবৃষ্টি বিশেষতঃ খরা প্রবন হওয়ায়-মরুকরনের প্রক্রিয়াভুক্ত। শিল্প কারখানা তেমনটি গড়ে না উঠায় এলাকার বেশীরভাগ মানুষই কৃষির উপর নির্ভরশীল। কৃষি জমির সিংহভাগই রয়েছে ব্যবসায়ী, চাকুরীজীবি ও জোতদারদের মালিকানায়, ফলে প্রায় ৫৬% মানুষই ভূমিহীন। আর্থ-সামাজিকভাবে অনুন্নত হওয়ায় এখানে নারী-পুরুষের অসমতা, শিক্ষার হার কম, মজুরীর হার নিম্ন, বাল্য বিবাহ, বহু বিবাহ, যৌতুক-তালাকের প্রবণতা, কুসংস্কার, অনৈতিক ফতোয়াবাজী, পারিবারিক সহিংসতা বিরাজমান। বিরাজমান এই অবস্থায় এক ধরনের হতাশা, কর্মে অণীহা ও ভগ্ন স্বাস্থ্য মানুষের জীবন যাত্রার মানকে আরো নিম্নে নিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে নারী আরো বেশী দরিদ্র, নির্যাতিত ও বঞ্চিত। এরকম অবস্থার উপলব্ধি থেকে দরিদ্র ভূমিহীন মানুষের অধিকার সংরক্ষণের, আর্থ সামাজিক উন্নয়ন বিশেষত নারীকে উন্নয়নের মূলধারায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে স্থানীয় কিছু সমাজ কর্মীদের উদ্যোগে ১৯৮৪ সালে ‘‘মানব কল্যাণ পরিষদ-এমকেপি” নামে একটি বে-সরকারী উন্নয়ন সংস্থা প্রতিষ্ঠা করা হয়।

 

আমাদের দেশের মোট জন সংখ্যার অর্ধেক নারী। এমকেপি বিশ্বাস করে দেশের উন্নয়নের মূলধারায় নারী সম্পৃক্ততা পিছিয়ে থাকায় পারিবারিক, সামাজিক উন্নয়ন তথা জাতীয় উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে। তাই চলমান প্রকল্প সমূহের দ্বারা অত্র অঞ্চলের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি নারীকে উন্নয়নের মূলধারায় নিয়ে আসতে এমকেপি প্রতিটি প্রকল্পের মাধ্যমে জেন্ডার ধারনা প্রতিষ্ঠানিকীকরণের প্রয়াস অব্যাহত রেখেছে। এমকেপি মানুষের জাগতিক দৃষ্টিভঙ্গী বিকাশের মাধ্যমে বৈষম্যমুক্ত শান্তিপূর্ণ সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে স্বনির্ভরতা অর্জনে অঙ্গীকারবদ্ধ।

 

বর্তমানে জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, যৌথ পরিবার ভেঙ্গে একক পরিবার সৃষ্টি দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতিসহ কর্মসংস্থানের অভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে ফলে নৈতিক অবক্ষয় ও দক্ষতা হ্রাস পাচ্ছে। এমতাবস্থায় আমরা মনে করছি তথ্য ঘাটতির কারণেই উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে। উন্নয়নের জন্য যে সব তথ্য প্রয়োজন সে সব তথ্য সংগ্রহ করে তৃণমূল পর্যায়ে সরবরাহের মাধ্যমে এবং বিশেষতঃ নারীদের উন্নয়নের মূলধারায় সম্পৃক্ত করেই উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করা। এ ক্ষেত্রে আমাদের চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে।  


 

NGO সমূহ